দাঁত দিয়ে গোড়াটা চেপে ধরে জিভ দিয়ে নাড়াচ্ছি

দাঁত দিয়ে গোড়াটা চেপে ধরে জিভ দিয়ে নাড়াচ্ছি

দাঁত দিয়ে গোড়াটা চেপে ধরে জিভ দিয়ে নাড়াচ্ছি    তানজিলা আপু আমাদের বাসায় এসে প্রায় হইচই ফেলে দিল। আমার চাচাত বোন, ঢাকায় থাকে মেডিকেলে চান্স পেয়েছে মাত্র। ক্লাস শুরু হতে নাকি এখন ঢের বাকি তাই এই সুযোগে বিভিন্ন আত্মীয় স্বজনের বাসায় ঢু মেরে বেড়াচ্ছে। আমার চেয়ে বছর ছয়েকের বড়। শেষ দেখেছিলাম দু বছর আগে। তখন সে বইয়ের ভেতর নাক গুঁজে থাকত। আমার সারাক্ষণটা কাটত তার ছোটভাই রাসেলের সাথে। ফলে এর আগে কুশল বিনিময় ছাড়া কোনদিন কোন কথা হইনি। এবার এসে যখন আমার মাথায় চাটি মেরে বলল, কিরে মিথুন তুই তশ ব্যাটাছেলে হয়ে গেছিস, আমি তো বিশাল অবাক। এই তানজিলা আপু আর আগের শুকনো প্যাকাটি আঁতেল তানজিলা আপুর ভেতর কোন মিল পেলাম না। আপু ফর্সা বরাবরই, যথেষ্ট লম্বাও, এখন স্বাস্থ্যটাও ভাল।

যা আগে কখনই ছিল না। মেডিকেলে চান্স পেয়ে মনে হয় শরীরের জেল্লা বেড়ে গেছে।আমার মা’ও নতুন একটা আইটেম পেয়েছেন। প্রতিদিন নিত্যনতুন পিঠাপুলি তার নিজের স্টকে যা জানা আছে বানিয়ে খাওয়াচ্ছেন। আর আমার ও ঋতুর উপর উপদেশ ঝাড়ছেন কিভাবে ভাল করে পড়তে হবে যেন মেডিকেলে চান্স পাওয়া যায়। আর বাসায় যখনি কেউ বেড়াতে আসে তাকেই বলেন এ আমার বড় জা’র মেয়ে এবার ডাক্তারী পড়া শুরু করবে। খুব লক্ষ্মী মেয়ে। আপু শোনে লজ্জায় না আহ্লাদে কি জানি লাল হয়ে যায়।

তানজিলা আপু এসেই আমার বোন ঋতু আর ছোট চাচার জমজ দুই পিচ্চি আরিফ শরিফের লিডার বনে গেল। পিচ্চিগুলা হয়েছেও সেরকম ন্যাওটা তার। কোন হুকুম মাটিতে পড়ার উপায় নেই। সামর্থের ভেতর যতটুকু পারে প্রাণ দিয়ে সেটুকু করে আনুগত্যের নিদর্শন দেখায়। আপু গল্পও বলে মজা করে। তানজিলা আপুকে আমি একটু এড়িয়েই চলতাম। আমার ব্যস্ততা তখন প্রাইভেট পড়া আর ক্রিকেট খেলা নিয়ে। আপুর সাথে কথা হত খুবই কম। তাও হ্যাঁ হুঁ এর মাঝে সীমাবদ্ধ ছিল।

সে অবশ্য আমার সাথে ইয়ার্কি করার চেষ্টা করত। আমার গার্লফ্রেন্ড আছে কিনা দেখতে কেমন তার চেয়ে সুন্দরী কিনা এসব বলে রাগানোর চেষ্টা করত। Bangla Choti আমি খুবই লজ্জা পেতাম। আর সে মজা পেত।একদিন স্কুল থেকে ফিরেই গোসল করতে ঢুকলাম।

গোসল খানায় দেখি তানজিলা আপুর পোশাক ঝোলানো। মাথায় কি যে শয়তানি চাপল ভাঁজ করা কাপড়গুলো খুলে দেখতে গেলাম। কামিজের ভাঁজে পেয়ে গেলাম হালকা খয়েরী রংয়ের ব্রাটি। বুকের মাঝে ঢিপ করে উঠল। এক দৃষ্টিতে চেয়ে রইলাম কিছুক্ষণ। মন্ত্রমুগ্ধের মত নাকের কাছে এনে গন্ধ নিলাম। কিছুই পেলাম না তবু এক অজানা আকর্ষণে সারা মুখে ঘষতে লাগলাম ব্রাটা। আমার ধোনটা শক্ত হয়েইছিল। ট্রাউজারটা নামিয়েই ব্রাটা ছোঁয়ালাম ধোনে।

এক লহমায় তানজিলা আমার কামনার আরাধ্য হয়ে গেল। আমার চোখের সামনে তানজিলার গোলাকৃতির মুখটা ভেসে এল। জ্বলজ্বল করতে থাকল গোলাপী ঠোঁটের ডানপাশের তিলটা। কল্পনা করতে লাগলাম তার ঐ সুন্দর মুখে এঁকে দিচ্ছি হাজার চুমু। তার না খেয়াল করা ভরাট বুকটার ছবি দেখছি চোখে। আর বন্ধুদের কল্যাণে শেখা বিদ্যা কাজে লাগাচ্ছি প্রাণপণে। এক সময়ে চোখে আঁধার দেখলাম। ছলকে ছলকে মাল বেরিয়ে এল। ভরে গেল ব্রায়ের কাপটা। একদম ভিজে চুপচুপে।

এতক্ষণে সম্বিত ফিরে পেলাম। একি করলাম আমি। ব্রায়ের মাঝে খেঁচার কি দরকার ছিল। হায় হায় এখন কি হবে। দলা পাকিয়ে ওটা রেখে দিলাম কাপড়ের মাঝে। তারপর দ্রুত গোসল সেরে বের হয়ে পালালাম।ঘরে ফিরে কিছুতেই শান্তি পেলাম না। এর মাঝে আপুও বাথরুমে ঢুকেছে। বুঝতে পারছি না টের পেল কিনা টেনশন দূর করার জন্য পেপার নিয়ে বসলাম।

শুধুই তাকিয়েই থাকা হল কাজের কাজ কিছুই হল না। আমি জানালা দিয়ে উঠোনের অন্যপাশের গোসলখানায় খেয়াল রাখছি। এর ভেতরে তানজিলা আপু গোসল শেষ করে বেরিয়েছে। মুখটা খুবই গম্ভীর। সেরেছে। Bangla Choti আজকে আমার খবরই আছে। ভেজা কাপড়গুলো দড়িতে মেলে দিয়ে আমার রুমের দিকেই আসতে লাগল। এত জোরে আমার বুক কাঁপতে লাগল যে মনে হল মরেই যাব। হে ধরণী দ্বিধা হও আমি লুকাই। আপু জানালা দিয়ে দেখতে পেলেন।

হেসে ফেলে বলল তুইতো খুব বড় হয়ে গেছিস। আমার তো আক্কেলগুড়ুম। বলেকি? এটা কী তাহলে প্রশ্রয়! বুকের মাঝে অজানা শিহরণ খেলে গেল। যাকে দুঘন্টা আগেও একপ্রকার শ্রদ্ধা করতাম তাকেই মনে হল পেতে যাচ্ছি। তার এই হেসে বলা কথাটা আমার আশা বাড়িয়ে দিল। মনে হল তের বছরের জীবনে যা ঘটে নি তাই ঘটতে যাচ্ছে। মনের ভেতর একজন বারবার বলে উঠল সুযোগ নে সুযোগ নে।

Banagla maa chele sex সারাটা বিকেল এরপর আনমনায় কেটে গেল। খেলার মাঠটায় তানজিলার কথা চিন্তা করতে করতে পার হয়ে গেল। কোন কিনারা হল না। সন্ধ্যাটাও কাটল ঘোরের মাঝে।রাতে খেয়ে পড়তে বসলাম। উথাল পাথাল চিন্তায় কাটতে লাগল সময়। সবাই ঘুমিয়ে পড়ল একে একে। আমার ঘরটার পাশেই ঋতুর ঘর। আপুও ওর সাথে ঘুমায়। একবার ও ঘরে যাব নাকি।

মুহূর্তেই মাথা থেকে ঝেড়ে ফেললাম চিন্তাটা। আবার ভাবলাম গেলে কীই বা হবে। টানাপোড়েনে কেটে গেল অনেকটা সময়। অনেকটা যন্ত্রচালিতের মত উঠে দাঁড়ালাম। পায়ে পায়ে এগিয়ে গেলাম দুঘরের মাঝের দরজাটার সামনে। ভেতর থেকে আটাকানো। সমস্যার কিছুই না। পাল্লাটা একটু চাঁড় দিয়ে আঙ্গুল ভরে দিয়ে খুলে ফেললাম। জানালা দিয়ে বারান্দার লাইটের আলো . দাঁত দিয়ে গোড়াটা চেপে ধরে জিভ দিয়ে নাড়াচ্ছি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *